সুখবর নিয়ে ফিরেছেন সাকিব

তাকে অধিনায়ক করেই নিদাহাস ট্রফির জন্য ১৬ সদস্যের বাংলাদেশ দল ঘোষণা করেছিল বিসিবি। শেষ পর্যন্ত অবশ্য দলের সঙ্গে শ্রীলংকা যাওয়া হয়নি সাকিব আল হাসানের। শুধু শ্রীলংকা বললে ভুল হবে, নিদাহাস ট্রফি থেকেই ছিটকে যান বাংলাদেশের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

জানুয়ারিতে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ফিল্ডিং করার সময় আঙুলে চোট পান সাকিব। এ কারণে ব্যাটিংয়ে নামা হয়নি তার। চোটের কারণে তিনি ছিটকে যান শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকেও। তবে মার্চের ৬ তারিখ থেকে শ্রীলংকায় শুরু হওয়া তিন জাতির (বাংলাদেশ-ভারত-শ্রীলংকা) নিদাহাস ট্রফিতে তার খেলার প্রবল সম্ভাবনা ছিল। সাকিব নিজেও দারুণ আশাবাদী ছিলেন। তবে চোটকে জয় করতে পারেননি!

উন্নত চিকিৎসার জন্য অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন সাকিব। ওখানে হ্যান্ড স্পেশালিস্ট ডাক্তার ডেভিড হয়কে চোট পাওয়া আঙুল দেখিয়ে রবিবার ঢাকায় ফেরেন তিনি। দেশে ফিরেই গতকাল চলে এসেছিলেন মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। বিসিবি একাডেমি ভবনের জিমনেশিয়ামে জিম করে কিছুটা সময় কাটিয়েছেন তিনি। এর পর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ঢাকা লিগে শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাবের ইনিংস শেষে মাঝ বিরতিতে মাঠে ব্যাটিং অনুশীলনও করেন সাকিব।

বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী বলেছেন, অস্ট্রেলিয়া থেকে ভালো সংবাদ নিয়েই ঢাকায় ফিরেছেন সাকিব। তার মতে, ৬-৭ দিনের মধ্যেই পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক। সাকিব অবশ্য নিজে কিছু বলেননি। তবে তিনি যে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠার পথে, তা দেখেই বোঝা গেছে!

সাকিব অস্ট্রেলিয়া গিয়েছিলেন গত ৮ মার্চ। এর আগে শ্রীলংকায় গিয়ে দেখা করেন সতীর্থদের সঙ্গে। কলম্বো থেকেই অস্ট্রেলিয়াগামী বিমানে চড়েন তিনি। গত ৯ মার্চ তিনি দেখা করেন ডেভিড হয়ের সঙ্গে। জানা গেছে, এ বিশেষজ্ঞ সাকিবের বড় কোনো সমস্যা খুঁজে পাননি। একটি বিশেষ প্রদাহনিরোধী ইনজেকশন দিয়েছেন। বিসিবির প্রধান চিকিৎসকের ধারণা, এ ইনজেকশনের প্রভাবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই সম্পূর্ণ সুস্থ হবেন সাকিব আল হাসান।

গতকাল দেবাশীষ চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করেন সাকিব। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার নিজে তার চোটের ব্যাপারে কিছু না বললেও পরে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক। দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, ‘ডেভিড হয় সাকিবের বড় কোনো সমস্যা দেখেননি। উনি প্রদাহনিরোধী একটি ইনজেকশন পুশ করেন। আশা করছেন এই ওষুধটা ধীরে ধীরে কার্যকর হবে। যদি ওষুধটা কার্যকর হয় তাহলে ৭-১০ দিনের মধ্যে সাকিব পুরোপুরি খেলাধুলার কার্যক্রমে ফিরতে পারবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এখন ব্যথা কমে অনেকটাই ভালো অবস্থায় আছে। আমি বলবÑ তার উন্নতিটা ইতিবাচক।’

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে মোহামেডানের হয়ে খেলার কথা রয়েছে সাকিব আল হাসানের। তবে কি চলমান লিগে খেলতে পারবেন তিনি? দেবাশীষ চৌধুরী এবার বললেন, ‘খেলাধুলার কার্যক্রমে ফেরা আর ম্যাচ ফিটনেস পাওয়ার মধ্যে পার্থক্য আছে। ম্যাচ ফিটনেসের জন্য আরেকটু সময় নিতে হবে। কেননা মনস্তাত্ত্বিক একটি ব্যাপার কিন্তু থেকেই যায়। অবশ্য এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে সাকিব। আমরা চেষ্টা করছি আপাতত স্পোর্টিং ফিটনেস ফিরিয়ে আনতে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

BIGTheme.net • Free Website Templates - Downlaod Full Themes