নৌকা প্রার্থীর উঠান বৈঠকে মন্ত্রীপুত্রের নেতৃত্বে হামলা, অতঃপর…

0
14

নরসিংদীতে মনোহরদী পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকে মেয়র প্রার্থীর উঠান বৈঠকে হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকসহ আহত হয়েছেন ১০ জন।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) রাত ১০টায় পৌর শহরের ৭নং ওয়ার্ডের হিন্দু পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে। শিল্পমন্ত্রীর ছেলে ও আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদী নেতৃত্বে এ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আমিনুর রশিদ সুজন।
জানা যায়, শিল্পমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের ছেলে মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদী মনোহরদী পৌরসভা নির্বাচনে চারজন কাউন্সিলর প্রার্থীকে সমর্থন দেন। এসব প্রার্থীদেরকে সমর্থন দেয়ার জন্য আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আমিনুর রশিদকে চাপ প্রয়োগ করেন মন্ত্রী পুত্র সাদী। কিন্তু মেয়র সুজন বিষয়টি গুরুত্ব না দেওয়ায় ক্ষিপ্ত ছিলেন সাদী। এরই জের ধরে বুধবার রাতে পৌর শহরের হিন্দু পাড়ায় সুজনের উঠান বৈঠকে মন্ত্রীরপুত্র মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদীর নেতৃত্বে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হামলা করা হয় বলে অভিযোগ করেন সুজন সমর্থকরা। এতে মেয়র সুজনের বড় ভাই মামুন ও ছোটভাই তন্ময়, বিটন, সাম্মী, দৈনিক আমার সংবাদ পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধি খাদেমুল ইসলামসহ কমপক্ষে ১০-জন আহত হয়েছে। এসময় সাংবাদিকের ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয় হামলাকারিরা।

এ ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মু. ফজলুল হকের প্রাইভেটকার ভাঙচুর করা হয় এবং উঠান বৈঠকে আগত নেতাকর্মীদের ৭-৮টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে হামলাকারীরা। এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ফাঁকা গুলি ছুড়ে। পরে মেয়র পক্ষের লোকজনের প্রতিরোধে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

মাইকিং এর মাধ্যমে এ ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে পৌর এলাকায় গভীর রাত পর্যন্ত মেয়র পক্ষের লোকজনেরা ৭নং ওয়ার্ডে অবস্থান নেন। এছাড়াও মেয়র সমর্থকরা মনোহরদী বাসস্ট্যান্ডসহ প্রধান সড়কে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এসময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা মন্ত্রীপুত্র সাদীসহ তার সহযোগীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি করেন।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত মঞ্জুরুল মজিদ মাহমুদ সাদীর মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কলটি রিসিভ করেননি তিনি।

মেয়র প্রার্থী আমিনুর রশিদ সুজন বলেন, বুধবার রাত ১০টার দিকে উঠান বৈঠকে হামলার পর, গভীর রাতে ওই এলাকায় আমার আরেক কর্মীকেও পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করেছে সাদীর অনুসারীরা। এ ন্যক্কারজনক হামলার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান তিনি।

এ ঘটনায় মনোহরদী পৌর শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পুলিশের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের জানান, মনোহরদীতে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত পুলিশসহ র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে পৌর শহরে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here