শাক-সবজিতে শীতের হাওয়া

0
25

চলছে শাক-সবজির ভরা মৌসুম। বছরের অন্য সময়গুলোর চেয়ে এ সময়টাতে ক্রেতারা তুলনামূলক স্বাভাবিক দামে শাক-সবজি কিনে থাকেন। তবে এ বছর বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস, বন্যা, অতিবৃষ্টিসহ নানা দুর্যোগের কারণে মৌসুমের শুরু থেকেই চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে শাক-সবজি। তদুপরি দামে অস্থিরতা ছাপিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় এ পণ্যের বাজারে বইতে শুরু করেছে শীতের হাওয়া।

শুক্রবার (০৪ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর বেশ কয়েকটি খুচরা কাঁচা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় সব ধরনের শাক-সবজিতে গত কয়েক সপ্তাহের তুলনায় দাম কমেছে। কোন শাক-সবজি কী দামে বিক্রি হচ্ছে এ নিয়েই আজকের প্রতিবেদন।

সবজির দাম:
আকার ও মানভেদে প্রতিটি ফুলকপি ও বাঁধাকপি ২০, ২৫ ও ৩০ টাকা এবং লাউ ৪০ থেকে ৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি শালগম ৫০, মুলা ২০, টমেটো ১০০ থেকে ১২০, কাঁচা টমেটো ৪০, শিম ৪০, ছোট লাল আলু ৪০, বড় পুরান আলু ৪৫ থেকে ৫০, নতুন আলু ৭০ থেকে ৮০, ঢেঁডস ৫০ থেকে ৫৫, ধুন্দল ৪০ থেকে ৪৫, সাদা ও লম্বা বেগুন ৪০, তাল বেগুন ৬০, বোতল বেগুন ৫০, ঝিঙে ৪৫ থেকে ৫০, পটল ৪০ থেকে ৪৫, করলা ৫০, উস্তা ৬০, পেঁপে ৩০, বরবটি ৮০, মিষ্টি কুমড়া ৪০, শসা ৪০, পেঁয়াজ পাতা ৫০ ও কাঁচা মরিচ ১০০ টাকা দরে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া প্রতিহালি কাঁচা কলা ও লেবু বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকায়।

শাকের দাম:
প্রতি আঁটি লাল শাক, মুলা শাক, ডাটা শাক, পালং শাক ও কলমি শাক ৬ থেকে ৭ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, তবে দুই বা চার আঁটি অথবা এর চেয়ে বেশি আঁটি একত্রে কিনলে প্রতি আঁটি ৫ টাকা করে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া প্রতি আঁটি লাউ শাক ২৫ থেকে ৩০ টাকা ও পুঁই শাক ২০ থেকে ২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি ধনেপাতা বিক্রি হচ্ছে ৮০-৮৫ টাকা দরে।

মসলার দাম :
সপ্তাহের ব্যবধানে শাক-সবজিতে কিছুটা স্বস্তি ফিরলেও দামে অপরিবর্তিত রয়েছে মসলায় বাজার। স্থানভেদে দেশি পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫, মরিচ ৩৫০, রসুন ৯০, আদা ১০০, জিরা ৩৬০, গোলমরিচ ১০০০, গোয়া মরিচ ২০০, দেশি লাল মরিচ ৪০০, হলুদ ২৪০, ধনিয়া ১৫০, এলাচি ৩০০০, তেজপাতা ২০০, লবঙ্গ ১০০০, দারচিনি ৪৫০, মেথি ২০০, সরিষা ১২০ (সাদা) ও ১০০ (কালো), পাঁচফোড়ণ ২০০ ও জয়ফল ১০ (প্রতি পিস) টাকা মূল্যে পাওয়া যাচ্ছে।

মাংসের দাম:
মাংসের দামও গত সপ্তাহের মতো অপরিবর্তিত রয়েছে। প্রতিকেজি গরুর মাংস ৫৫০, দেশি মুরগি ২২০ থেকে ২৫০, লেয়ার মুরগি ২০০, সোনালী মুরগি ২১০ ও বয়লার মুরগি ১২৫ থেকে ৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া দেশি হাঁস ও মুরগির ডিম প্রতি হালি ৫০ ও বয়লার মুরগির ডিম ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, বিগত বছরগুলোতে এসময়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় কাঁচা পণ্যের বাজার দর এবারের তুলনায় কম ছিল। বিক্রেতারা এর কারণ হিসেবে বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস, পণ্য পরিবহন ভাড়া বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি উল্লেখ করলেও সাধারণ ক্রেতারা তা মনে করছেন না। তবে শাক-সবজির দাম কিছুটা কমে আসায় সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে খানিক স্বস্তি দেখা গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here