ইতালিতে রোনালদোর থেকে ইব্রার প্রভাব বেশি!

0
15

ইতালিতে দুই মৌসুম কাটিয়েও অর্জন কম নয় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর। শুধু তার জন্যই বেড়ে গেছে জুভেন্টাসের ভক্ত। তার কারণেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ প্রভাবশালী এক শক্তি হয়ে উঠেছে জুভেন্টাস।

ওদিকে জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ ইতালিতে ফিরেছেন এক বছরও হয়নি। এ বছরের জানুয়ারিতে এসি মিলানে যোগ দিয়েছেন তিনি। অর্ধ মৌসুমে ক্লাবের হয়ে ২০ ম্যাচ খেলে করেছেন ১১ গোল। এ মৌসুমে অবশ্য আগুনে ফর্মে আছেন। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় এক মাস মাঠে নামতে পারেননি। তবু ৩ ম্যাচেই ৫ গোল করেছেন এই সিনিয়র খেলোয়াড়।

এসি মিলানও চার ম্যাচ খেলে পূর্ণ ১২ পয়েন্ট নিয়ে লিগের শীর্ষে আছে। আর এ দেখেই আলবের্তো জ্যাক্কেরোনির মনে হচ্ছে রোনালদোর চেয়ে ইব্রাই ইতালিতে প্রভাব বেশি রাখছেন।

এসি মিলান ও জুভেন্টাস দুই ক্লাবেরই কোচ ছিলেন জ্যাক্কেরোনি। তাই পক্ষপাতিত্ব না করেই মতামত দিতে পারছেন এই সাবেক কোচ। এবং তার ধারণা, একজন তারকা হিসেবে রোনালদো জুভেন্টাসের উপকারে এলেও ইতালির ফুটবলে তার তেমন অবদান নেই।

টানা সাত বছর লিগ জেতা এক দলে যোগ দিয়েছেন রোনালদো। দাপুটে এক দলের সঙ্গী হয়ে আরও দুটি লিগ জিতেছেন। আর ইব্রাহিমোভিচ ইতালিতে এসেছেন সম্পূর্ণ ভিন্ন এক পরিস্থিতিতে। মাঝে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যাওয়া এই সুইডিশ তারকার মনে হয়েছে এখনও ইউরোপিয়ান ফুটবলে খেলার সামর্থ্য তিনি রাখেন। যোগ দিয়েছেন ধুঁকতে থাকা এসি মিলানে।

যখন এসেছেন লিগে মিলানের অবস্থান ছিল নিচের অর্ধে। সেখান থেকেই দলকে টেনে তুলেছেন। ইউরোপে খেলার অবস্থানে নিয়ে গেছেন। বাছাইপর্ব শেষে ইউরোপা লিগেও জায়গা করে নিয়েছে মিলান। ৩৯ বছর বয়সেও তার মধ্যে গোল করার স্পৃহা আছে। ইন্টার মিলানের সঙ্গে মিলান ডার্বিতে তার জোড়া গোলে জিতেছে মিলান। উঠেছে লিগের শীর্ষে। মাঠে তার উপস্থিতি এতটাই গুরুত্বপূর্ণ যে ক্লান্ত হয়ে মাঠ ছাড়তে চাইলেও কোচ স্তেফানো পিওলি জোর করে রেখে দিয়েছেন। কারণ তার উপস্থিতিতে যে উজ্জীবিত হয়ে ওঠে পুরো দল।

জ্যাক্কেরোনির নজরে এসেছে এটিই, ‘আমি ক্যারিয়ারে অনেক চ্যাম্পিয়নকে কোচিং করিয়েছি। অলিভের বিয়েরহফ, জর্জ উইয়াহ থেকে আদ্রিয়ানো। কিন্তু আমার একটাই দুঃখ আমি কখনো ইব্রাহিমোভিচকে পাইনি। আমি বুঝি না কেন সে কখনো ব্যালন ডি’অর জেতেনি।’

লিগে শুধু এসি মিলানই যে শীর্ষে আছে তা নয়। দুইয়ে আছে সাসসুয়েলো, তিনে ও চারে আছে আতালান্তা ও নাপোলি। জুভেন্টাস আছে পাঁচে। ইতালিতে এমন কিছু দেখা যাচ্ছে বহুদিন পরই। এর কৃতিত্ব ইব্রাহিমোভিচকে দিতে চান জ্যাক্কেরোনি, ‘ইতালিতে সে-ই ধরনটা বদলে দিয়েছে। রোনালদোর চেয়েও বেশি। সে ফেরার পরই যে তরুণ খেলোয়াড়দের অনেক উন্নতি হয়েছে, এটা কোনো দুর্ঘটনা নয়। সে শুধু গোল করে না। সে তার সতীর্থদের আত্মবিশ্বাসী করে, কঠিন সময়ে নিজের কাঁধে দলের দায়িত্ব বুঝে নেয়।’

ইব্রাহিমোভিচ নিজেও জানেন দুর্দান্ত ফর্মে আছেন। তার ধারণা যত বয়স হচ্ছে, তত অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছেন, ‘আমার নিজেকে আরও পরিপূর্ণ মনে হচ্ছে, আরও বেশি অভিজ্ঞ হয়েছি। তরুণ সময়ে শেখাটা চলতেই থাকে। এখন নিজেকে পরিপূর্ণ ভাবি। আমার যদি শারীরিক অবস্থা ২০-৩০ বছর বয়সীদের মতো হতো, তাহলে আমাকে কেউ থামাতে পারত না। অবশ্য, এমনিতেও আমাকে এখন থামাতে পারছে না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here