ত্রুটি পেয়ে কিটের অ্যান্টিজেন পরীক্ষা স্থগিতের গণস্বাস্থ্যের চিঠি

0
12

নিজেদের উদ্ভাবিত কিটে করোনার নমুনা পরীক্ষায় অ্যান্টিজেনের ফলাফল আশানরূপ না পেয়ে ওই অংশের পরীক্ষা আপাতত স্থগিত রাখতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে (বিএসএমএমইউ) চিঠি দিয়েছে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র।

বুধবার (৩ জুন) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, তাদের কিটের দুটি অংশ অ্যান্টিবডি ও অ্যান্টিজেন। তার মধ্যে অ্যান্টিজেন্টের ফলাফল আশানুরূপ আসছে না বিধায় বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে ওই অংশ পরীক্ষা আপাতত স্থগিত রাখার জন্য চিঠি দেয়া হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার এ চিঠি দেয়া হয়।

মো. ফরহাদ বলেন, ‘সম্প্রতি জিআর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টে নমুনা লালা যথাযথ প্রক্রিয়ায় সংগ্রহে অসামঞ্জস্যতা থাকায় সঠিক ফলাফল নির্ণয়ে জটিলতা তৈরি হচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অ্যান্টিজেন শনাক্তকরণের জন্য যথাযথ লালা নমুনায় থাকছে না বা অন্য বস্তুর মিশ্রণ লক্ষণীয়।’

তিনি বলেন, ‘সম্মিলিত মনিটরিং টিম এ সমস্যাটি চিহ্নিত করেছে। অতএব এই অ্যান্টিজেন সমস্যা থেকে উত্তরণের জন্য ল্যাবে লালা সংগ্রহের পদ্ধতিগত কাজ শুরু হয়েছে। শিগগিরই সেটি সম্পর্কে জানাতে পারবো বলে আশা করছি।’

গণস্বাস্থ্যের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘চিঠিতে আমরা বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষকে বলেছি, আপাতত অ্যান্টিজেনের কাজ বন্ধ রাখতে। আর অ্যান্টিবডির যেটার ফলাফল ভারো এসেছে সেটার অনুমোদন দেয়ার ব্যবস্থা করে দিতে।’

তিনি বলেন, ‘আবার ডেভেলপ করার পর (অ্যান্টিজেন) তাদের দেয়া হবে। তখন তাদের ধারণা দেয়া হবে, কীভাবে লালা সংগ্রহ করতে হবে অথবা কীভাবে কাজ করলে এর ভালো ফলাফল আসবে।’

এর আগে গত ৩০ এপ্রিল ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের থেকে বিএসএমএমইউ বা আইসিডিডিআরবি’তে ওই কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য অনুমিত দেয়া হয়। গত ২ মে কিটের কার্যকারিতা পরীক্ষার জন্য বিএসএমএমইউ’র ভাইরোলজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. শাহীনা তাবাসসুমকে প্রধান করে ৫ সদস্যের কমিটি গঠিত হয়।

ওইদিন কমিটির একজন সদস্য বিএসএমএমইউ হাসপাতালের ভাইরোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র উদ্ভাবিত কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে ৫ সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। আজই হয়তো লিখিত অফিস অর্ডার হয়ে যাবে। এরপরই আমরা চূড়ান্তভাবে কিটের কার্যকারিতা যাচাইয়ে কাজ শুরু করবো।’

এর আগে গত ৩০ এপ্রিল ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র আমাদের কাছে চিঠি লিখে অনুমতি চেয়েছিল কিট ট্রায়ালের। আমরা আজ অনুমতি দিয়ে দিয়েছি। যদিও এটার জন্য অনুমতি লাগার কথা না। গণস্বাস্থ্য আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র-বাংলাদেশ (আইসিডিডিআরবি) অথবা বিএসএমএমইউ’তে তাদের উদ্ভাবিত কিটের ট্রায়াল করতে পারবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here