মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বিয়ের রাতে কনে উধাওঃ

0
45

প্রেম যে কোন বাঁধা মানে না তাই যেন প্রমাণ করলেন আলাউদ্দিন ফাল্গুনী জুটি।যানা যায়, মৌলভীবাজার জেলার কমলঞ্জ উপজেলার বালিগাঁও গ্রামের রতু দেবের মেয়ে ফাল্গুনী দেব (১৮) এর সাথে (৬ মে) পারিবারিক ভাবে বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক হয় বড়লেখা উপজেলার পৌর এলাকার রিংকু দেবের, সব কিছু ঠিকটাক মতই চলছিল কনের পিত্রালয় বালিগাঁও গ্রামে।
অনুষ্ঠানকে ঘিরে বিয়ে বাড়ীতে যথারীতি সাজ স্বজ্জা করা হয়, বিয়ে বাড়িতে আগের দিন থেকে আত্মীয় স্বজন সহ আমন্ত্রিত অতিথিরা বাড়ীতে এসে জড়ো হয়েছিলো। কনের বাড়িতে বিয়ের আমেজ হৈ হুল্লুড়, চলছে বরকে বরণ করার প্রস্তুতি। সোমবার রাতে বর আসার আগে সন্ধ্যায় ভানুগাছ বাজারে চৌমোহনাস্থ একটি বিউটি পার্লারে বৌ সাজে নিজেকে সাজাতে যান কনে  ফাল্গুনী দেব সেখানে সাজ-গোজ শেষ না করেই একই উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাঘমারা গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে প্রেমিক আলাউদ্দিন (২০) এর  হাত ধরে পালিয়ে যায়। 
এমতাবস্থায় বড়লেখা উপজেলা থেকে বরযাত্রী নিয়ে বর যখন কমলগঞ্জ বালিগাঁও গ্রামে কনের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে জুড়ী উপজেলায় আসেন, ঠিক তখনি পথিমধ্যে (কমলগঞ্জ হতে) খবর পান বিউটি পার্লারে সাজতে গিয়ে কনেকে কোথাও খোঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা। এমন খবরে হতভম্ব হয়ে পড়েন বর পক্ষের লোকজন। পারিবারিক ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, সামাজিক ভাবে আলোচনা সাপেক্ষে মেয়ের সম্মতিতে ধর্মীয় রীতিনীতি মেনে এই বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল।   
 ফাল্গুনির নিকট আত্মীয় তপন দেব জানান, ফাল্গুনী পার্লারে সাজসজ্জার কাজ না করেই একটি ছেলের হাত ধরে মোটর সাইকেল চড়ে বসতে দেখে এগিয়ে আসলে মুহুর্তের মধ্যেই ছেলেটি ফাল্গুনীকে নিয়ে উধাও হয়ে যায়। পরে এই খবর শুনে ফাল্গুনীর পিতাসহ আত্বীয়গণ তাদের খোঁজে বের হলেও তাদের কোন সন্ধান বের করতে পারেননি। বিষয়টি মৌখিকভাবে কমলগঞ্জ থানাকে অবহিত করে পুলিশের সাহায্য চাওয়া হয়। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।  সৈয়দ ময়নুল ইসলাম রবিনঃ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here